শূন্যতা (অনু গল্প)

রমনার পাশের ফুটপাত ধরে হাটছি। ভয়াবহ জ্যাম থেকে বাচতে প্রায়ই আমি বাস থেকে নেমে পল্টন পযন্ত হেটে যাই। তবে ফুটপাতে হাটার সময় অন্য দিনের মত  আনন্দ  আজ পাচ্ছিনা।

১৫ দিনের মধ্য বাসা ছাড়তে হবে ! এই নোটিশটা বার বার মাথার মধ্য ঘুরপাক খাচ্ছে। পাশের বাড়ির মালিক আহসান উল্লাহ সাহেব কে পুলিশ ধরে নিয়ে গিয়েছে গতকাল মাঝরাতে। তার ব্যাচেলর ভাড়াটেরা নাকি জঙ্গি !  এই মুহূর্তে ব্যাচালর হচ্ছে শহরের ভিলেন ! তাই ব্যাচালর নামের কোন আপত কে বাড়িওয়ালা রাখবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। কি যন্ত্রনা ! এখানে অন্যায় একজন করলেও তার ফল ভোগ করবে নিরহ হাজার জন !

হঠা‌ৎ থমকে দাড়ালাম দু’জন। মুখোমুখি ১১ বছর পর ! বিস্মিত আমরা। ওর ঠোট নড়লো,<!–more–> কিছু বলতে গিয়েও শেষ পযন্ত থেমে গেল।

একটুও বদলায়নি শ্রাবনী। সবুজ শাড়িতে দারুন দেখাচ্ছে  ওরে। নাকের উপর ঘাম জমেছে। চশমাটা যোগ হয়েছে কেবল। তাতে ভালোই লাগছে। ওর আরো আগেই চশমা নেওয়া দরকার ছিল।
ও চোখ ফিরিয়ে নিল । আমিও তার রাস্তা থেকে সরে দাড়ালাম। শ্রাবনী পা বাড়ালো। সেই পরিচিত পারফিউমের গন্ধ ছড়িয়ে পড়ল।

আমাকে কি চিনতে পারেনি? নাকি অভিনয় করছে? আমার কি আগ বাড়িয়ে কথা বলা দরকার ছিল? কেন বলব ? আমি কি…ধুর… কি সব ভাবছি এতদিন পর !!
আমি ফুটপাতেই দাড়িয়ে আছি।

চোখের সিমানার বাইরে যাবার আগে একবারের জন্য ও ফিরে তাকালো। ওর সেই চোখে আকুলতা নেই, ভালবাসা নেই, অভিমানও নেই, আছে শুধু ঘৃণা।

কারো ঘৃণা ভরা চাহনী এত অসহ্য হয় ?
আমার খুব খারাপ লাগতে শুরু করল। আমিও হাটছি। রাস্তা শেষ হল।

অফিসে এখনো কেউ আসেনি। সুইপার ফ্লোর পরিস্কার করছে। শূন্য অফিসে ডেটলের গন্ধ বিদঘুটে লাগছে। আমি শ্রাবনীর চাচাতো ভাই হাফিজ কে ফোন দিলাম। এক সময় সে আমাদের দুজনের পিয়ন ছিল। চিঠি বহনে তার বিকল্প ছিলনা। বিশ্বাসী মানুষ ছিল সে।

 শ্রাবনীর কথা জানতে চাইলাম। ও দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললো, গতবছর সড়ক দুর্ঘটনায় সন্তানসহ মারা গেছে শ্রাবনী !
বলিস কি !
কেন তুই জানিস না? হাফিজের প্লাটা প্রশ্ন
আমি রিসিভার নামিয়ে রাখলাম। আমার মাথা ঝিম ঝিম করছে। আমি কি জ্ঞান হারাচ্ছি…!

1688930_458250097634165_680393863_n/ এম এম ওবায়দুর রহমান/
৪আগষ্ট ২০১৬

A new day

hi

how are you my dear blog Reader..

ক্যামেরা কেনার আগে ও পরে যে তথ্য গুলো আপনার জেনে রাখা দরকার

parts_and_controls

ছবি তোলা একটি শখ। অনেকেই ছবি তুলতে পছন্দ করেন। তবে সবাই ভাল ফটোগ্রাফার হতে পারেন না। পরিশ্রম মেধা আর অনুশীলনের মাধ্যমেই ফটোগ্রাফারকে তার লক্ষে পৌছাতে হয়। আজকে আমি নতুন একটি ক্যামেরা কেনার আগে আপনাকে যেসব ব্যাপার অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে আমি তার কিছু টিপস দিতে চেষ্টা করব। সংগে ক্যামেরার পরিচর্চা নিয়েইও আলোচনা করব।

পছন্দ করার মতো বাজারে অনেক ব্রাণ্ডের ক্যামেরা পাবেন, আলাদা আলাদা ফিচারযুক্ত ক্যামেরা পাবেন। আপনি পেশাদার ফটোগ্রাফি বা পারিবারিক ছবি তোলার জন্যই হোক, ভালো মানের ছবি তোলার জন্য ডিএসএলআর ক্যামেরা সবচেয়ে উত্তম। সহজ করে বললে ডিএসএলআর ক্যামেরায় আপনি আপনার স্বাধীন সৃজনশীলতার ছাপ রাখতে পারবেন। আবার প্রশ্ন করতে পারেন ডিএসএলআর ক্যামেরা কী? Continue reading →

মানুষের গায়ের বর্ন বা লিংঙ্গ নয় তার গুনকে মূল্যায়ন করতে হবে ।

ছবি টি ইন্টার নেট থেকে নেওয়া।

ছবি টি ইন্টারনেট থেকে নেওয়া।

সেদিন দুপুরের ছবিটা এখনো আমার চোখে ভাসে। বাইরে ছিল ঝকঝকে রৌদ্যু। আমরা কয়েকজন প্রাইমারী স্কুল থেকে ফিরে বাইরের সামনের খোলা উঠানে খেলতে ছিলাম। আমাদের পাশ দিয়ে হন-হন করে গ্রামের পল্লী ডাক্তার রফিক কাজী তার বাড়িতে ঢুকলেন। তারপর হঠাৎ চিৎকার চেচামেচি, হাউমাউ কান্নার শব্দ। দৌড়ে গিয়ে দেখলাম রফিক কাজী তার স্ত্রীকে পেটাচ্ছেন। কারন তার স্ত্রী তৃতীয় বারের মত Continue reading →

টোকাই

 

পথশিশু

পথশিশু

মায়ের ডাকে কভু ঘুম ভাংগেনা
আদর ভালোবাসা কেউ দেয়না
অনাহারে অর্ধাহারে দিন কেটে যায়
আমাদের খবর কেউ রাখেনা।
আমরা টোকাই আমরা রাস্তার সন্তান
তাই রাস্তাই ঠিকানা রাস্তাই আপন।

ওদের মত ব্যাগ কাধে স্কুলে যাইনা
লাল নীল স্বপ্নে কভু হারাই না Continue reading →

একজন মাহমুদুর রহমান ও মেরুদন্ডহীন আমরা

 

সত্যিকারের বীর প্রিয় মাহমুদুর রহমান

সত্যিকারের বীর প্রিয় মাহমুদুর রহমান

আদালত থেকে বের হয়ে মাহমুদুর রহমান ভাই যখন হাসিমুখে হাত উচিয়ে স্লোগান দিল কেন জানিনা সেই দৃশ্য দেখে আমার চোখ থেকে দু’ফোটা অশ্রু গড়িয়ে পড়ল। যন্ত্রনায় হৃদয় ক্ষতবিক্ষত হলো। আমরা তার জন্য কিছুই করতে পারলাম না। কতবড় স্বার্থপর আমরা !

একটা মানুষ আমাদের অধিকার নিয়ে কথা বলতে গিয়ে কি দুর্বিসহ বিভিষিকাময় জীবন কাটাচ্ছে। অথচ আমরা নির্বিকার সয়ে যাচ্ছি!
এমনকি বিএনপির বহু নেতা সরকারের সংগে হাত মিলিয়ে জেল-জুলুম এড়িয়ে ব্যবসা বানিজ্য করে আরো কোটিপতি হচ্ছে।

আমি আমারদেশ পত্রিকায় লিখার সুবাদে বেশ কয়েকবার ওনার সংগে কথা বলার সুযোগ পেয়েছিলাম। আমি নির্দ্বিধায় স্বীকার করি তার মত সাহসী মানুষ জীবনে খুব কমেই দেখেছি।
বিএনপি-জামায়াতের নয়াদিগন্ত, এনটিভি,বাংলাভিশনসহ সকল মিডিয়া যখন শাহবাগীদের বন্দনায় মত্ত তখন মাহমুদ ভাই প্রথম শিরোনাম করেছিল-
শাহবাগে ফ্যাসিবাদের পদধ্বনি : Continue reading →

জনগণের প্রতিনিধিহীন এই সংসদ নিয়ে অহংঙ্কার করা কতটা শালীন?

file
প্রধানমন্ত্রী আত্মতৃপ্তি নিয়ে বলেছেন, সংসদ ভাল চলছে। বিএনপি সংসদে নেই, তাই খিস্তিখেউড় নেই..। তিনি হাসিমুখে যখন কথা বলছিলেন, আমি তখন স্থানীয় বাজারের একটি সাধারণ খাবার হোটেলে বসেছিলাম। দোকানের টিভিতে তার সরাসরি ভাষণ চলছে। খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষগুলো প্রধানমন্ত্রীর হাসি ভরা মুখের দিকে তাকিয়ে আছে।
যতই দিন যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর চেহারা উজ্জ্বল হচ্ছে। আত্মবিশ্বাস বাড়ছে। একের পর এক গণবিরোধী সিধান্ত দিয়ে যাচ্ছেন। Continue reading →

কেমন ছিল বাকশাল?

1_Fer
১৯৭৫ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে বাকশাল নামের একটি অকল্পনীয় ভূতড়ে শাসন ব্যবস্থা চালু করেন তৎকালীন সরকার প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান। তখন বাকশালকে জাতীয় রাজনৈতিক দল বলা হলেও মূলত এটা ছিল রাজতন্ত্রের আদলে তৈরী করা একটি শাসন ব্যবস্থা । জনগনের শাসক নির্বাচনে জনগনকে সম্পৃক্ত না করে প্রেসিডেন্টের একটিমাত্র আদেশের ফলে অন্যান্য সকল রাজনৈতিক দল কে বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়।
আমাদের সংবিধানে রাষ্ট্রের মালিক ছিল দেশের নাগরিকরা। কিন্তু সেই নাগরিকদের অনুমোদন না নিয়েই বাকশাল চালু করা হয়। সদ্য স্বাধীন হওয়া বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের নাগরিকরা যখন স্বাধীনতা আর গনতন্ত্রের স্বপ্নে বিভোর ছিল, তখন হঠাৎ করে চাপিয়ে দেওয়া বাকশাল তাদের কাছে ছিলো দুঃস্বপ্নের মতই।
এই সিধান্ত ছিল স্বৈর শাসকদের মত Continue reading →

বিরহ

প্রতিক্ষায় কাটেনা প্রহর।
আমার শব্দ গুলি নিঃশব্দে ঢাকা পড়ে যাচ্ছে
আর অশ্রু গুলি শুকিয়ে যাচ্ছে বাতাশে
তুমি জানলে না
বুঝলে না
অবহেলার বিরহ কতটা তীব্র।। Continue reading →

গভীর অন্ধকারে ঢেকে যাচ্ছে সব…!

পুড়ছে সভ্যতা!

পুড়ছে সভ্যতা!

কাগজে লিখেছে ঢাকা শহর পৃথিবীর অন্যতম সুখি নগরী!
খবরটা কি কৌতুক করার জন্য, নাকি সত্যি সেটা বুঝে উঠতে পারলেন না আনোয়ার সাহেব। খবরের কাগজ গুলো ইদানিং এমন খবর লিখতে শুরু করছে যে মাঝ মাঝে ভীষণ কনফিউস হয়ে যান তিনি।
অবশ্য ইতিমধ্যই ইন্টারনেটের কল্যানে ছাপাখানা বন্ধ হবার উপক্রম হয়েছে। প্রচার সংখ্যা দ্রুত কমে যাচ্ছে। গ্রাহক ধরে রাখতে নানান কসরত করতে শুরু করছে পত্রিকা গুলি। অশ্রীল ছবিযুক্ত লেখার পাশাপাশি রগরগে শিরোনাম দিয়ে ভেতরে অন্তসার শূন্য খবর দিচ্ছে। কয়েকটি পত্রিকার সম্পাদক তো বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে এতবেশী দৌড়াদৌড়ি করেন যে তাদের পত্রিকার অফিসে যাবার ফুসরত পান বলে মনে হয়না।
শোনা যায় এখন নাকি কাগজের পত্রিকা দিয়ে সম্পাদকদের আর পেট চলেনা। তাই বিভিন্ন টকশোতে ভাড়া খাটেন ! এক চ্যানেলে উপস্থাপক তো অন্য চ্যানেলে আলোচক। এমন করেই নিজেদের গোত্রর মধ্য তারা দৌড়ের উপর আছেন ! Continue reading →

Blogger MM Obaydur Rahman

ভালোবাসা বদলে দিতে পারে সকল অকল্যান....তাই আসুন মানুষকে ভালোবাসি।

সারোয়ার ইবনে গিয়াস

The greatest WordPress.com site in all the land!

meghbalikargalpo

This WordPress.com site is the cat’s pajamas

fahimrahman007

A great WordPress.com site

পলাশ মাহমুদ

নিত্যদিনের এলোমেলো গদ্য লেখালেখি ব্লগ

অর্ণব আর্কের খেরোখাতা

ইতিহাস, ঐতিহ্য, প্রত্নতত্ত্ব আর রাজনীতি

মাহমুদুল হাসান ফেরদৌস এর কালির আঁচড়

জড়ো হ‌ওয়া শব্দের অভয়াশ্রম